সুন্দরী নারীর সংস্পর্শে বাড়ে হার্ট অ্যাটাক ঝুঁকি

সুন্দরী নারীর সংস্পর্শে বাড়ে হার্ট অ্যাটাক ঝুঁকি

আমরা সবাই জানি হার্ট আমাদের সারা শরীরের রক্ত সঞ্চালন করে পাম্পের মাধ্যমে। যেহেতু হার্ট নিজে একটি পাম্প, তাকে কাজ করতে হয়, তাই তার নিজস্ব একটি রক্ত চলাচলের পদ্ধতি রয়েছে, রক্তনালি আছে। এই রক্তনালিগুলো মধ্যে কোনো একটি বা একের অধিক নালি যদি হঠাৎ করে বন্ধ হয়ে যায়, তাহলে হার্টের বেশ কিছু অংশে রক্ত চলাচল বন্ধ হয়ে পড়ে। বন্ধ হয়ে গেলে হার্টের কাজ করার ক্ষমতাও বন্ধ হয়ে যায়। এটিই হলো হার্ট অ্যাটাক।

মূলত, রক্তনালি বন্ধ হয়ে যাওয়ার ফলে হার্টের কার্যক্ষমতা যে বন্ধ হয়ে গেল, সেটিই হলো হার্ট অ্যাটাক। যার একবার হার্ট অ্যাটাক হয়ে যায় তাকে প্রায় সারাজীবনই বেশ সতর্কভাবে জীবনযাপন করতে হয়।

কিন্তু হার্ট অ্যাটাকের অনেক কারণের মধ্যে সুন্দরী নারীর সংস্পর্শও একটি। গবেষকরা বলছেন, সুন্দরী নারীদের প্রতি পুরুষের আকর্ষণ প্রকৃতিরই নিয়ম। সেক্ষেত্রে নাটক-সিনেমার নায়িকা হলে তো আকর্ষণ আরও বাড়ে। পর্দার গ্ল্যামার বহু পুরুষের রাতের ঘুম হারাম করে ফেলে।

গবেষকরা বলেছেন, সুন্দরী মেয়েদের দেখলে ছেলেদের শুধু মনেরই নয়, শরীরেও নানা উথাল-পাথাল হয়ে যায়। যার প্রভাবে হার্ট অ্যাটাক পর্যন্ত হতে পারে।

স্পেনের ভ্যালেন্সিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষকের দাবি, সুন্দরী নারীরা পুরুষের সামনাসামনি আসার পর পুরুষের মানসিক চাপ বেড়ে যায়। এতে অনেক সময় হার্ট অ্যাটাক পর্যন্ত হয়।

গবেষণা দলটি অন্তত ৮৪ জন পুরুষের ওপর এমন জরিপ চালিয়েছে দীর্ঘ ৯ বছর ধরে।

গবেষকদের দাবি, মোহনীয়তা ছড়ানো আবেদনময়ী নারীদের সান্নিধ্যে আসার ৫ মিনিটের মধ্যে পুরুষদের দেহে কোর্ট্রিসল নামক বিশেষ হরমোনের নিঃসরণ বেড়ে যায়। এর প্রভাবে হৃদযন্ত্রের স্বাভাবিক ক্রিয়া ব্যাহত হয়। সঙ্গে ডায়াবেটিস বা স্নায়বিক রোগেরও আশঙ্কা বাড়ে।

স্পেনের গবেষক দলটি তাই হার্ট অ্যাটাক থেকে নিরাপদে থাকতে পুরুষদের সুন্দরী নারীর খুব কাছাকাছি না যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।