আত্রাইবাসীর জন্য “ইউএনওর” ঈদ শুভেচ্ছা

আত্রাইবাসীর জন্য “ইউএনওর” ঈদ শুভেচ্ছা


ত্যাগের মহিমায় ভাস্বর পবিত্র ঈদ-উল-আযহা আমাদের জন্য শান্তি, সহমর্মিতা ও ভ্রাতৃত্ববোধের বার্তা নিয়ে আসে। ঈদের আগমনে আনন্দে মনের পূর্ণতা পায়,জেগে উঠে আমাদের উচ্ছ্বসিত মন।


মো: খালেক হাসান:

ঈদুল আযহা উপলক্ষ্যে ঈদ শুভেচ্ছা জানিয়েছেন আত্রাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার ছানাউল ইসলাম। এক শুভেচ্ছা বার্তায় তিনি আত্রাই উপজেলাবাসী সকল  মুসলিম ভাই-বোনদের আন্তরিক শুভেচ্ছা ও ঈদ মোবারক জানিয়েছেন।

বার্তায় তিনি বলেন,ঈদ আসলে প্রতিটি মানুষের জীবনে আনন্দ বয়ে যায়। জীবন হয়ে উঠে বাস্তবতার সবুজ চত্বরে একরাশ কাশ ফুলের স্পর্শানুভূতি। স্বপ্ন বিলাসী মন হয়ে উঠে জাগতিক কোলাহলপূর্ণ। প্রকৃত অর্থে ঈদ আসলে খুশীতে ভরে উঠে প্রতিটি হৃদয় আকাশ। একইভাবে আমরাও আনন্দে মেতে উঠি। যেখানে নেই কোন দুঃখ ভারাক্রান্ত মন, ও হিংসা বিদ্বেষের কোন হঠকারিতাপূর্ণ চিন্তা-চেতনা। সেই সমাজ ও পরিবেশ যাতে আছে কল্যাণ কামিতা, আছে ভালবাসা, প্রেম-প্রীতি ও সহমর্মিতা।

তিনি আরও বলেন,পশু কোরবানির মধ্যদিয়ে মানুষের ভেতরের পাশবিক উপসর্গ নির্মূলের ঐশী আবাহনে ফিরে এসেছে পবিত্র ঈদুল আজহা। নিজের সবচেয়ে প্রিয় বস্তু আল্লাহর নির্দেশে কোরবানি তথা বিসর্জন দেয়াই ঈদুল আজহার দর্শন।

নির্বাহী অফিসার ছানাউল ইসলাম বলেন, পশুর রক্ত, আবর্জনা ও হাড় থেকে যেন পরিবেশ দূষিত না হয়, সে দিকে প্রত্যেক মুসলমানের সতর্ক হওয়া উচিত। কোরবানি শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে রক্ত, আবর্জনা ও হাড় নিরাপদ দূরত্বে নির্দিষ্ট জায়গায় ফেলে দিতে হবে। বেশিরভাগ লোকই নিজস্ব জায়গায় পশু জবাই করে। এতে করে অলি-গলিতে বর্জ্য যেমন পড়ে, তেমনি রক্ত পড়ে দূষিত হয় পরিবেশ, চলাচলের অনুপযোগী হয় রাস্তাঘাট। মনে রাখতে হবে, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা ঈমানের অঙ্গ। এই শহর, এই গ্রাম আমার আপনার সকলের। তাই এটিকে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে নিজেদের সচেতন হতে হবে।

তিনি শান্তিপূর্ণভাবে ঈদ উদযাপনে সকলের সহযোগিতাও কামনা করেন।