নওগাঁ জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ছিন্নমূল মানুষের মাঝে ৫৬ হাজার কম্বল বিতরণ

নওগাঁ জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ছিন্নমূল মানুষের মাঝে ৫৬ হাজার কম্বল বিতরণ

নওগাঁয় শীতার্ত মানুষের শীত নিবারনের জন্য জেলা প্রশাসক মোঃ হারুন-অর-রশীদ রাতে শহরের বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে ঘুরে কম্বল বিতরন করেছেন। শনিবার দিবাগত গভীর রাতে তিনি রাত সাড়ে ১১টা থেকে রাত দেড়টা পর্যন্ত শহরের হরিজন পল্লীসহ তুলনামুলকভাবে পিছিয়ে পড়া এলাকা এবং বাস টার্মিনালসহ উন্মুক্ত জায়গায় অবস্থানরত ছিন্নমুল মানুষের মধ্যে এসব কম্বল বিতরন করেন। এ সময় তাঁর সথে ছিলেন জেলা প্রশাসনের অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ। 

জেলা ত্রান ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা এ কে এম আব্দুল মান্নান জানিয়েছেন চলতি শীত মওসুমে এ পর্যন্ত নওগাঁ জেলায় মোট ৫৫ হাজার ৭শ ৭টি কম্বল বরাদ্দ করা হয়েছে। বরাদ্দকৃত সমুদয় কম্বল জেলার ১১টি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে ৯৯টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এবং ৩টি পৌরসভার মেয়রদের মধ্যে স্ব স্ব ইউনিয়ন ও পৌরসভার শীতার্ত মানষের জন্য বিতরন করা হয়েছে। 

সুত্রমতে জেলার ৯৯টি ইউনিয়ন ও ৩টি পৌরসভর  প্রতিটিতে ৪৬০টি করে মোট ৫৩ হাজার ৫শ ২০টি, ১১টি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের প্রতিটিতে ৬০০টি করে মোট ৬ হাজার ৬শটি কম্বল বিতরন করা হয়েছে। অবশিষ্ট ২ হাজার ১শ ৮৭টি কম্বল জেলা প্রশাসক বিতরন করেছেন। জেলা ত্রান ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা’র দেয়া তথ্য মতে উপজেলা ভিত্তিক কম্বল বিতরনের পরিমান হচ্ছে নওগাঁ সদর উপজেলার ১২টি ইউনিয়নে ৫ হাজার ৫শ ২০টি, পত্মীতলা উপজেলায় ১১টি ইউনিয়নে ৫ হাজার ৬০টি, মহাদেবপুর উপজেলায় ১০টি ইউনিয়নে ৪ হাজার ৬শ’টি, মান্দা উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নে ৬ হাজার ৪শ ৪০টি, পোরশা উপজেলায় ৬টি ইউনিয়নে ২ হাজার ৭শ ৬০টি, সাপাহার উপজেলায় ৬টি ইউনিয়নে ২ হাজার ৭শ ৬০টি, নিয়ামতপুর উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে ৩ হাজার ৬শ ৮০টি, বদলগাছি উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে ৩ হাজার ৬শ ৮০টি, আত্রাই উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে ৩ হাজার ৬শ ৮০টি, রানীনগর উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে ৩ হাজার ৬শ ৮০টি এবং ধামইরহাট উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে ৩ হাজার ৬শ ৮০টি।

অপরদিকে জেলার তিনটি পৌরসভার নওগাঁ পৌরসভায় ৪৬০টি, নজিপুর পৌরসভায় ৪৬০টি এবং ধামইরহাট পৌরসভায় ৪৬০টি কম্বল বিতরনের জন্য প্রদান করা হয়েছে।

নওগাঁ জেলা প্রশাসক মোঃ হারুন-অর-রশীদ জানান, প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর, ত্রান ও দূর্যোগ মন্ত্রনালয় থেকে বরাদ্দকৃত শীত বস্ত্র জেলার উপজেলা নির্বাহী অফিসারদের মাধ্যমে  ৯৯টি ইউনিয়নে ইউ,পি চেয়ারম্যানদের হাতে প্রাথমিক ভাবে এ শীত বস্ত্র দেওয়া হয়েছে। আগামীতে এ শীত বস্ত্র দেওয়া অব্যাহত থাকবে বলে তিনি জানান।