নওগাঁয় রাতে শীতার্তদের পাশে এমপি ইসরাফিল আলম

নওগাঁয় রাতে শীতার্তদের পাশে এমপি ইসরাফিল আলম

প্লাবন/মোজাফ্ফর মোল্লা রাণীনগর থেকে: নওগাঁর রাণীনগরে রাতে শীতার্ত ছিন্নমূল, অসহায়, গরীব ও খেটে খাওয়া মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরন করলেন এমপি ইসরাফিল আলম। নওগাঁয় শৈত প্রবাহের শুরু থেকে আজ পর্যন্ত তাপমাত্রা ৭- ১১ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে অবস্থান করছে। লাগাতার প্রবাহিত এই মৃদু শৈতপ্রবাহের কবলে পড়ে মানবেতর জীবন-যাপন করছে ছিন্নমূল, গরীব, অসহায় খেটে খাওয়া মানুষরা। তবে গত দু’দিন যাবত তীব্র শীতের সঙ্গে হিমেল হাওয়া বয়ে যাওয়ায় শীতের তীব্রতা নতুন মাত্রা যোগ করেছে। হিমেল হাওয়া আর এই শীতের তীব্রতায় জবুথবু হয়ে পড়েছে ছিন্নমূল ও খেটে খাওয়া মানুষরা। গরম কাপড়ের অভাবে শীত নিবারন করা তাদের কাছে খুবই কষ্টকর হয়ে পড়েছে।
সরকারি ভাবে যে শীতবস্ত্রগুলো বিতরন করা হচ্ছে তা প্রয়োজনের তুলনায় খুবই নগন্য। এই সব ছিন্নমূল, গরীব, অসহায়, খেটে খাওয়া মানুষ ও এতিমখানার এতিম শিক্ষার্থীদের যেন এই তীব্র শীত স্পর্শ না করে সেই লক্ষ্যে নওগাঁ-৬ (আত্রাই রাণীনগর) আসনের সংসদ সদস্য মো: ইসরাফিল আলম নিজ অর্থায়নে ইসরাফিল আলম ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের তহবিল থেকে তার নির্বাচনী এলাকার জন্য প্রায় ২০হাজার শীতবস্ত্র (কম্বল) বিতরন করেছেন। শুক্রবার রাতে রাণীনগর উপজেলার রাণীনগর হাউজে তিনি এই শীতবস্ত্র বিতরনের আনুষ্ঠানিক ভাবে উদ্বোধন করেন। এছাড়াও তিনি একই সময়ে কাশিমপুর খামার বাড়িতেও ওই এলাকার শীতার্ত ছিন্নমূল, অসহায়, গরীব ও খেটে খাওয়া মানুষদের মাঝে শীত বস্ত্র হিসেবে কম্বল তুলে দেন। রাণীনগর উপজেলার ১৫টি এতিমখানা, দাতব্য প্রতিষ্ঠানে, ভবঘুরে, ছিন্নমূল, গরীব, অসহায় ও খেটে-খাওয়া মানুষের জন্য তিনি এই শীতবস্ত্রগুলো বিতরন করার জন্য নেতৃবৃন্দদের নির্দেশনা প্রদান করেছেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন রাণীনগর উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আনোয়ার হোসেন, আত্রাই ও রাণীনগর উপজেলার সকল মাদ্রাসা ও এতিমখানার প্রধান, পারভেজ হোসেন, উপজেলা আওয়ামীলীগ ও তার সকল অঙ্গসংগঠন এবং স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। নওগাঁ-৬ (আত্রাই-রাণীনগর) আসনের সংসদ সদস্য মো: ইসরাফিল আলম বলেন মানুষ মানুষের জন্য। সমাজের মানুষের জন্য কাজ করাই আমাদের প্রধান কাজ। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে আমরা সংসদ সদস্যরা শুধু সরকারি বরাদ্দ নয় নিজেদের অর্থায়নেও শীতার্ত মানুষের জন্য গরম কাপড় বিতরন করে আসছি। তবে বিগত সময়ের তুলনায় চলতি বছরের বর্তমান সময়ে উত্তরাঞ্চলে শীত একটু আগেই জেকে বসেছে। তাই এই শীতে আমার নির্বাচনী এলাকার মানুষসহ আশেপাশের সকল শীতার্ত মানুষদের জন্য আমি শীতবস্ত্র প্রদান করছি। যদি শীতবস্ত্র আরো প্রয়োজন হয় আমি আগামীতে নিয়ে আসবো। তবুও আমার মানুষদের গরম কাপড়ের অভাবে শীতের মধ্যে কষ্ট করতে দেবো না। আমি সরকারি বরাদ্দকৃত ও আমার নিজ অর্থায়নে ক্রয় করা শীতবস্ত্রগুলো সঠিক ভাবে দ্রুত শীতার্ত মানুষের মাঝে বিতরন করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে কঠোর নির্দেশনা প্রদান করেছি। এছাড়াও আমার বাড়ির দুয়ার সকল অসহায় ও শীতার্ত মানুষের জন্য খোলা আছে।