• বৃহস্পতিবার, ০২ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৭:৪৩ পূর্বাহ্ন
  • Bengali Bengali English English
সংবাদ শিরোনাম
অল্পের জন্য হেরে গেলেন হিরো আলম বইমেলা উদ্বোধন করতে বাংলা একাডেমিতে প্রধানমন্ত্রী সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজের খরচ ৬ লাখ ৮৩ হাজার টাকা বিদ্যুৎ খাতে সরকারের লুটপাট, মাশুল দিচ্ছে জনগণ জাপানকে বিএনপির গোপন চিঠি: সংসদে ফাঁস করলেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী প্রথম শ্রেণির ২৫ কর্মকর্তাসহ ৬৯ জনকে শাস্তি দিলো ইসি শিক্ষা নিয়ে ব্যবসার মানসিকতা পরিহারের আহ্বান রাষ্ট্রপতির বাংলাদেশ কোচের দায়িত্বে আবারও হাথুরু সিংহে ঢাকা বাণিজ্য মেলায় ৩শ কোটি টাকার রপ্তানি আদেশ প্রতিকার চেয়ে প্রেস কাউন্সিলে ওয়াসার এমডি রেলের ২৮১৭ একর জমি বেদখলে একাদশে ভর্তির আবেদনের সময় বাড়ল ৩০ এপ্রিল থেকে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু গণশুনানি লাগবে না, প্রজ্ঞাপনেই জ্বালানির দাম বাড়াতে পারবে সরকার আ.লীগ পিছু হটে না: প্রধানমন্ত্রী

ক্রোয়েশিয়াকে ৩-০ গোলে হারিয়ে ফাইনালে আর্জেন্টিনা

প্রজন্মের আলো / ১০ শেয়ার
Update : বুধবার, ১৪ ডিসেম্বর, ২০২২

অনলাইন ডেস্ক:

কাতার বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ক্রোয়েশিয়াকে ৩-০ গোলে হারিয়ে ফাইনাল নিশ্চিত করলো আর্জেন্টিনা। যার মধ্যদিয়ে প্রায় ৩৬ বছরের শিরোপা ঘোচানোর পথে বেশ খানিকটা এগিয়ে গেলো আলবিসেলেস্তেরা।

মঙ্গলবার দিবাগত রাতে লুসাইল স্টেডিয়ামে খেলতে নেমে ৩৪ মিনিটে পেনাল্টি থেকে দলকে লিড এনে দেন লিওনেল মেসি । এর পাঁচ মিনিট পর ব্যবধান দ্বিগুণ করেন হুলিয়ান আলভারেজ।

ম্যাচের শুরু থেকে বল দখলে রেখে আর্জেন্টাইন রক্ষণে চাপ তৈরি করতে থাকে ক্রোয়েশিয়া। তবে ক্রিস্টিয়ান রোমেরো, নিকোলাস ওতামেন্দিদের নৈপুণ্যে ডি-বক্সে ঢোকার সুযোগ পায়নি মদ্রিচরা। ১৬ মিনিটে প্রথম কর্নার তুলে নেয় ক্রোয়াটরা। ১৭ মিনিটে গোলের জন্য প্রথম শট নেয় গত আসরের রানার্সআপরা। তবে তাদের সে শট লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারেনি।

অন্যদিকে ম্যাচের ১৮ মিনিট পেরিয়েও আক্রমণে বেশ ব্যাকফুটে ছিলো আর্জেন্টিনা। ক্রোয়েশিয়ার ৬৫ শতাংশের বিপরীতে মেসিরা তখন পর্যন্ত মাত্র ৩৫ শতাংশ সময় বল দখলে রাখতে পেরেছিলো। তবে গোলের জন্য কোনো শটই নিতে পারেনি দুবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা।

ম্যাচের ২৫ মিনিটে গোলের উদ্দেশে প্রথম শট নেয় আর্জেন্টিনা। অবশ্য ডি-বক্সের বাইরে থেকে এনজো ফার্নান্দেজের শট সে যাত্রায় ফিরিয়ে দিয়ে দলকে বিপদমুক্ত রাখেন লিভাকোভিচ।

এক মিনিট পর আর্জেন্টিনার রক্ষণে হানা দিয়েছিলো ক্রোয়েশিয়া। তবে বিপদ বাড়ার আগেই কোভাসিচকে আটকে দেন আর্জেন্টাইন ডিফেন্ডাররা। ৩১ মিনিটে গোলের জন্য শট নেন পেরিসিচ। তবে তার শটটি চলে যায় বারের উপর দিয়ে। পরের মিনিটে পাল্টা আক্রমণে ডি-বক্সে লিভাকোভিচের সঙ্গে সংঘর্ষ ঘটলে রেফারি পেনাল্টির বাঁশি বাজান। সফল স্পটকিকে দলকে এগিয়ে নেন লিওনেল মেসি। এ গোলের মাধ্যমে ১১ গোল করে ফিফা বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনার হয়ে সর্বোচ্চ গোলস্কোরারের তালিকায় বাতিস্তুতাকে পেছনে ফেলেছেন তিনি।

৩৯ মিনিটে পাল্টা আক্রমণে ক্রোয়াটদের ডি-বক্সে দুই ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে লিভাকোভিচকে পরাস্ত করে বল জালে জড়ান হুলিয়ান আলভারেজ। এক মিনিট পর ডি-বক্সের বাইরে থেকে রদ্রিগো ডি পলের শট ক্রোয়াট ডিফেন্ডারদের বাধায় লক্ষ্যে থাকেনি।

বিরতির আগে গোল শোধের সুযোগ পেয়েছিলো ক্রোয়েশিয়া। তবে ওতামেন্দি ও এমিলিয়ানো মার্টিনেজের নৈপুণ্যে তাদের সে সুযোগ বিফলে যায়। শেষ পর্যন্ত ২-০ গোলের লিড নিয়ে বিরতিতে যায় আর্জেন্টিনা।

বিরতি থেকে ফিরে আর্জেন্টিনা খানিকটা রক্ষণাত্মক ফুটবল খেলছিলো। তবে প্রতি আক্রমণও করছিলো সুযোগ বুঝে। তেমনই এক আক্রমণের শেষে আর্জেন্টিনা পায় তৃতীয় গোলের দেখা। ক্রোয়াট বিপদসীমার ডান দিক থেকে ঢুকে তিন ডিফেন্ডারকে ছিটকে দিয়ে অ্যালভারেজকে বলটা বাড়ান মেসি। প্রথম ছোঁয়াতেই তিনি বলটা জড়িয়ে দেন ক্রোয়েশিয়ার জালে। ফলে ম্যাচের ৬৯ মিনিটে আর্জেন্টিনা এগিয়ে যায় ৩-০ গোলে।

দ্বিতীয়ার্ধে আরও এক গোল হজমের পর শেষ দিকে গোলের জন্য মরিয়া হয়ে ওঠে মদ্রিচরা। শেষ পর্যন্ত এই মিডফিল্ডারকেও উঠিয়ে নেন দালিচ। কিন্তু ফল মেলেনি তাতেও। বারবার আক্রমণ সাজিয়েও আর্জেন্টিনার রক্ষণের কাছে পেরে উঠলো না তারা।

যার ফলে শেষমেশ ওই ৩-০ ব্যবধানে হেরেই বিদায় নিলো জলাতকো দালিচের দল। বিপরীতে দুর্দান্ত জয়ে কাতার বিশ্বকাপের ফাইনালে পৌঁছে গেলো আর্জেন্টিনা।

২০১৪ সালের বিশ্বকাপের ফাইনালের পর আবারো মেসির সামনে সুযোগ আসলো বিশ্বকাপ ট্রফি জয়ের। দুর্দান্ত মেসি যেভাবে আগাচ্ছেন তাতে বোধহয় ভাগ্যদেবতা তার দিকে মুখ তুলে তাকাতেও পারেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও সংবাদ

Categories