• বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০:০৮ পূর্বাহ্ন
  • Bengali Bengali English English
সংবাদ শিরোনাম
কানাডায় স্থায়ী হতে আসা বাংলাদেশিদের চাকরি না পাওয়ার হতাশা ভূমধ্যসাগরে নৌযানে অগ্নিকাণ্ডে মাদারীপুরের ৫ জনের মৃত্যু বাঙালির গৌরবের অমর একুশে ফেব্রুয়ারি আজ আর্থিক ও অবসর সুবিধা নির্দিষ্ট সময়ে প্রদানের রিটের রায় বৃহস্পতিবার কেন্দ্রের সব পরীক্ষার্থী ভুয়া, সচিবসহ ৫৮ জন আটক এলাকার উন্নয়নে প্রত্যেক সংসদ সদস্যরা পাবেন ২০ কোটি টাকা “আইন মেনে গ্রামীণের প্রতিষ্ঠানগুলোর নিয়ন্ত্রণ নেওয়া হয়েছে” অস্তিত্বের জন্য বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধি সীমাবদ্ধ রাখতে হবে এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের জন্য বড় সুখবর! আরও বড় হচ্ছে মন্ত্রিসভা: আলোচনায় যারা কারা পাচ্ছেন আওয়ামী লীগের সংরক্ষিত আসনের মনোনয়ন রমজানের পুরো মাস ছুটি থাকবে মাদ্রাসা রোজার শুরুতে চলবে স্কুল-কলেজের ক্লাস ড. ইউনূসের নির্দেশে ২৫ কোটি টাকা দেওয়া হয় সিবিএ নেতাদের চাঁদ দেখা গেছে, শবে বরাত ২৫ ফেব্রুয়ারি

পরবর্তী লক্ষ্য ক্যাশলেস সোসাইটি: সজীব ওয়াজেদ জয়

প্রজন্মের আলো / ৫৪ শেয়ার
Update শনিবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩
সংগৃহীত ফাইল ছবি

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছেলে ও তার তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় বলেছেন, আমাদের পরবর্তী পরিকল্পনা হলো—একটি ক্যাশলেস সোসাইটি গড়ে তোলা, যার জন্য ইতোমধ্যেই কাজ শুরু হয়েছে। আগামী ২-৩ বছরেই হয়তো সব সরকারি সেবাও ডিজিটাইজড হয়ে যাবে।

বুধবার (১৬ নভেম্বর) ফেসবুকে নিজের ভেরিফাইড পেজে দেওয়া এক পোস্টে এসব কথা বলেছেন তিনি। পোস্টের সঙ্গে নিজের বক্তব্য রাখার একটি ভিডিও যুক্ত করেছেন সজীব ওয়াজেদ জয়।

ফেসবুক পোস্টে তিনি লিখেছেন, ইন্টারঅপারেবল ডিজিটাল লেনদেন প্লাটফর্ম ‘বিনিময়’ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ডিজিটাল বাংলাদেশের জার্নির উপর কিছু ঘটনা উল্লেখ করেছিলাম। আজকে সেই বক্তব্যটি শেয়ার করবো আপনাদের সাথে।

ডিজিটাল বাংলাদেশের ধারণা, পরিকল্পনা ও বাস্তবায়ন আমাদের নিজেদের, হয়তো কিছু কিছু প্রোজেক্ট বাস্তবায়নে বিদেশি কোম্পানি কাজ করেছে কিন্তু পুরো পরিকল্পনা, ডিজাইন হয়েছে বাংলাদেশের নিজস্ব সক্ষমতায়।

বাংলাদেশের মার্কেটের চাহিদা অনুযায়ী সব আইটি সেবা বা সফটওয়্যার এখন আর বিদেশি কোম্পানির থেকে নিতে হয় না, দেশি বিভিন্ন কোম্পানির এক ঝাঁক মেধাবী তরুণদের সফটওয়্যারেই বাংলাদেশের অধিকাংশ আইটি সার্ভিস পাওয়া যায়, যা আমাদের জন্য অত্যন্ত গর্বের। আমাদের দেশের তৈরি সফটওয়্যারে এখন কাজ করছে অনেক বিদেশি কোম্পানিও।

আমাদের পরবর্তী পরিকল্পনা হলো—একটি ক্যাশলেস সোসাইটি গড়ে তোলা, যার জন্য ইতোমধ্যেই আমাদের কাজ শুরু হয়েছে। আগামী ২/৩ বছরেই হয়তো সব সরকারি সেবাও ডিজিটাইজড হয়ে যাবে।

ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার কৃতিত্ব বাংলাদেশের সরকার, প্রতিটি আইটি কোম্পানি ও সর্বোপরি বাংলাদেশের প্রত্যেক জনগণের।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও সংবাদ

Categories