• মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২, ০৭:২৫ অপরাহ্ন
  • Bengali Bengali English English
সংবাদ শিরোনাম
শনাক্ত ছাড়ালো ৮ হাজার, মৃত্যু ১০ সংক্রমণ বাড়লে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ : শিক্ষামন্ত্রী এখনই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের কথা ভাবছি না : শিক্ষামন্ত্রী ডিসিদের ২৪ দফা নির্দেশনা দিলেন প্রধানমন্ত্রী নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচন: আইভীর জয় দুই কারণে জাতীয়করণ হচ্ছে ১৮ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ইসি গঠন আইন দ্রুত সংসদে পাস হবে বলে আশা রাষ্ট্রপতির দেশে সংক্রমণের হার ২১ শতাংশ ছুঁইছুঁই করোনায় আরও ১০ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৬৬৭৬ ভিসির পদত্যাগ দাবিতে উত্তাল শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয় আ.লীগের উমা চৌধুরী পুনরায় মেয়র নির্বাচিত আইভীর জনপ্রিয়তায় নৌকার জয় এক দিনে শনাক্ত ৫ হাজার ছাড়াল, মৃত্যু ৮ বাড়তে পারে শীত, বিভিন্ন জেলায় দেখা দেবে শৈত্যপ্রবাহ উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট চলছে

বুর্জ খলিফার চেয়েও বড় গ্রহাণু পৃথিবীর কাছ দিয়ে যাবে, আছে ক্ষতির সম্ভবনা!

প্রজন্মের আলো / ৮ শেয়ার
Update : বুধবার, ১২ জানুয়ারী, ২০২২

অনলাইন ডেস্ক:

পৃথিবীর কাছ দিয়ে বেরিয়ে যাবে এক বিশালাকায় গ্রহাণু। আর সেদিকেই এখন নজর মহাকাশ গবেষকদের। মহাকাশ শিলা- গ্রহাণু ৭৪৮২ পৃথিবীর কাছ দিয়ে বেরিয়ে যাবে। নাসার সেন্টার ফর নিয়ার-আর্থ অবজেক্ট স্টাডিজ (সিএনইওএস) জানিয়েছে, গ্রহাণুটি ঘন্টায় ৬৯,২০০ কিলোমিটার বেগে উড়ছে।

মহাকাশবিজ্ঞানরা জানিয়েছেন, আগামী ১৮ জানুয়ারি ২০২২ পৃথিবীর সবচেয়ে নিকটে থাকবে এই গ্রহাণু।

অ্যাস্টেরয়েড ৭৪৮২, সাধারণভাবে ১৯৯৪ পিসি-১ নামে পরিচিত। এটির ব্যাস প্রায় ৩,২৮০ ফুট। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিখ্যাত এম্পায়ার স্টেট বিল্ডিংয়ের প্রায় দ্বিগুণ লম্বা এটি। প্রায় ১৯ লক্ষ কিলোমিটার দূর দিয়ে এই গ্রহাণু বেরিয়ে যাওয়ার কথা।

পৃথিবী এবং চাঁদের মধ্যবর্তী দূরত্বের পাঁচগুণ এটি। তবে মহাকাশবিজ্ঞানের হিসাবে এটি ‘নিয়ার আর্থ অবজেক্ট’ বা পৃথিবীর সন্নিকটস্থ বস্তু হিসাবেই বিবেচিত হয়। এই স্পেস রকটি প্রতি ১.৫ বছরে সূর্যকে প্রদক্ষিণ করে। ফের ২০৫১ সালে এটি পৃথিবীর কাছাকাছি দিয়ে যাবে। এর আগে শেষবার ১৯৩৩ সালে এটি পৃথিবীর সবচেয়ে কাছে এসেছিল। সেই সময়ে এটি পৃথিবী থেকে ১১ লক্ষ কিলোমিটার দূরত্ব দিয়ে বেরিয়ে গিয়েছিল।

গ্রহাণুটি ২০১৭ সালের এপ্রিলে শেষবারের মতো পৃথিবীর কাছাকাছি এসেছিল। আগামী ২০৩৪ সালের জুলাই পর্যন্ত আমাদের মহাজাগতিক অঞ্চলে ফিরে আসবে না। ১৯৯৪ সালে প্রথমবার জ্যোতির্বিজ্ঞানী রবার্ট ম্যাকনট গ্রহাণুটি দেখেছিলেন। অস্ট্রেলিয়ার সাইডিং স্প্রিং অবজারভেটরি থেকে তিনি এর পর্যবেক্ষণ করে। এর পরবর্তী বছরগুলিতে বিজ্ঞানীরা অধ্যয়নের পর এর কক্ষপথ নির্ধারণ করতে সক্ষম হন।

গ্রহাণু ১৯৯৪ পিসি-১ ছাড়াও, গ্রহাণু ২০২১ ওয়াইকে গত ২ জানুয়ারি ১.১৮ লক্ষ কিলোমিটার দূরত্বে পৃথিবীর পাশ দিয়ে বেরিয়ে গেছে। এই গ্রহাণুটি অবশ্য অনেক ছোট। মাত্র ১২ মিটার লম্বা।

নাসা এবং এর আন্তর্জাতিক অংশীদাররা ক্রমাগত আকাশে পৃথিবীর নিকটস্থ বস্তুর (NEOs) নজরদারি করেন। এই ধরনের ‘বস্তুর’ মধ্যে রয়েছে গ্রহাণু এবং ধূমকেতু। পৃথিবীর কক্ষপথের ৫০ মিলিয়ন কিলোমিটারের মধ্যে আসে এমন সবকিছুই নজরে রাখা হয়। বিজ্ঞানীদের অনুমান, কোটি কোটি গ্রহাণু এবং ধূমকেতু আমাদের সূর্যকে প্রদক্ষিণ করছে।

আমাদের প্রাত্যহিক জীবনের সঙ্গে এই স্কেল গুলিয়ে ফেললে চলবে না। জ্যোতির্বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে ‘কাছাকাছির’ পরিমাপ কিন্তু অনেকটাই বেশি। পৃথিবী থেকে ১৯.৪ কোটি কিলোমিটার দূরত্ব পর্যন্ত যে কোনও গ্রহাণু বা অন্যান্য ছোট সৌরজাগতিক বস্তুকে পৃথিবীর নিকটবর্তী বস্তু হিসাবে বিবেচনা করা হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও সংবাদ

বিশ্বে করোনা ভাইরাস

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
১,৬২৪,৩৮৭
সুস্থ
১,৫৫৩,৩২০
মৃত্যু
২৮,১৫৪
সূত্র: আইইডিসিআর

বিশ্বে

আক্রান্ত
৩৩০,২১৩,৮০৩
সুস্থ
মৃত্যু
৫,৫৪১,৬৬৪

Categories