• শুক্রবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ০১:০০ পূর্বাহ্ন
  • Bengali Bengali English English
সংবাদ শিরোনাম
করোনায় একদিনে মৃত্যু ৩, শনাক্ত ২৬১ বাসচাপায় বাবা-ছেলেসহ ঝরল ৩ প্রাণ আমিনবাজারে ছয় ছাত্রকে হত্যা: ১৩ জনের মৃত্যুদণ্ড কুমিল্লায় কাউন্সিলর হত্যা: প্রধান আসামি ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত পরিস্থিতি খারাপ হলে বন্ধ হতে পারে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এইচএসসি পরীক্ষা শুরু আজ শাহজালালে সেই বিমানে বোমা পাওয়া যায়নি পরীক্ষা সম্পর্কে সামাজিক মাধ্যমে প্রকাশিত তথ্য ভুল: জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় বিমানে যান্ত্রিক ত্রুটি, জরুরি অবতরণে প্রাণ বাঁচলো ৪২ যাত্রীর বোমা আতঙ্কে শাহজালালে মালয়েশিয়ান ফ্লাইটের জরুরি অবতরণ শিক্ষায় বড় একটা পরিবর্তন আনতেই হবে করোনায় আরও ২ জনের মৃত্যু গাড়ি ভাঙচুর না করে শিক্ষার্থীদের ক্লাসে ফেরার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর প্রবাসীদের দেশে প্রবেশে বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টিনসহ নতুন নির্দেশনা জেএসসির সনদের ফরম পূরণ শুরু ১১ ডিসেম্বর

সন্তান মাদকাসক্ত, কী করবেন মা বাবা

Abu Reza / ১৪ শেয়ার
Update : বুধবার, ১৭ নভেম্বর, ২০২১

আবু রেজা:

বর্তমানে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সমস্যা তরুণ-তরুণীদের মাদকাসক্তিতে জড়িয়ে পড়া। মাদকাসক্ত হওয়ার ফলে বাবা-মার সাথে সম্পর্ক নষ্ট হচ্ছে প্রতিনিয়ত এবং এই আসক্তি কাটিয়ে উঠার জন্য বাবা-মার পাশে থাকা অতীব জরুরি।

বাংলাদেশে ১৮ বছর বয়সী প্রায় ২৫ লাখ কিশোর যারা মাদকাসক্ত হয়ে পড়েছে। সন্তানদের মাদকাশক্তি থেকে ফেরানোর জন্য বাবা-মাকে মূখ্য ভূমিকা পালন করতে হবে। প্রথমে আপনাকে জানতে হবে কিশোর-কিশোরীরা মাদক কেন গ্রহন করছে?

১. নানা কারণে তারা মাদকসেবন করে থাকে। প্রথমে বন্ধু-বান্ধবের দ্বারাই এই মাদক এর সাথে পরিচয় ঘটে যা বাংলাদেশের এক প্রেক্ষাপটে এক জরিপে দেখানো হয়েছে। চলতি বছরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিজ্ঞান-সংস্কৃতি পরিষদ আয়োজিত মাদকাসক্তি সমস্যায় বাংলাদেশ শীর্ষক এক সেমিনারে বলা হয়, স্কুল-কলেজ পর্যায়ে শতকরা ৬ ভাগ ছাত্র মাদকদ্রব্য সেবন করে যা বন্ধুদের প্ররোচনার ফলে বা কৌতুহলবশত। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে মাদকের সাথে প্রথম পরিচয় ঘটে সিগারেটের মাধ্যমে। কারণ এটি সহজলভ্য।

২. অনিরাপত্তাবোধ, ট্রেন্ড বা যুগের সাথে তাল মিলাতে অথবা বন্ধুদের সামনে নিজের গ্রহণযোগ্যতা বাড়ানোর জন্য ধূমপান করেন। অনেকে যা বয়সের দোষ বলে আখ্যায়িত করেন।

৩. পরিবারে অন্য কোনো সদস্য মাদকসেবন করলে পরবর্তিতে তা সন্তানের উপরও প্রভাব ফেলে। সন্তান তখন মাদক গ্রহণে উদ্বুদ্ধ হয়।

৪. মানসিক স্বাস্থ্যের অবনতি। বাবা-মার ঝগড়া বা শিশুদের অনিরাপত্তাবোধ থেকে হতাশা, দুশ্চিন্তা, ডিপ্রেশন এসব কারণে মাদকসেবন করে।

৫. অতিরিক্ত আবেগপ্রবনতা থেকেও অনেক মাদক গ্রহণ করে।

৬. যে কোনো দুর্ঘটনা বা ট্রমাটিক ঘটনা, নির্যাতনের শিকার হলে।

৭. ধোকা, বিশ্বাসঘাতকতার মতো ঘটনা থেকে অনেকে মাদক গ্রহন করে।

কী করবেন মা বাবা

এমন অবস্থায় প্রতিটি বাবা-মার উচিত তাদের সন্তানদের সাথে খোলামেলা আলোচনা করা এবং কেন সে মাদকাসক্ত হয়ে পড়েছে তার কারণ খুঁজে বের করা। তাদেরকে আশ্বস্ত করা আপনি তাদের বন্ধু যাতে করে সে আপনাকে ভরসা করে তার মনের কথাগুলো জানাতে পারে নির্ভয়ে। কখনোই ভেবে নিবেন না যে, একবার কথা বলার মধ্যে দিয়েই সব ঠিক হয়ে যাবে এবং আপনার কথা অক্ষরে অক্ষরে শুনবে। আপনাকে সময় দিতে হবে এবং সময় দিতে হবে। এ ধরনের স্পর্শকাতর ইস্যুতে বার বার সন্তানকে মাদক নেয়া শুরু করবে।

মাদকের কুফল বা ভয়াবহ সম্পর্কে তাকে জানান, কিভাবে তার স্বাভাবিক জীবনকে ক্ষতি করছে তা উপলব্ধি করানো এবং তাদের মনে কোনো জেদ সৃষ্টি না করা। কোনো স্পর্শকাতর বিষয়ে বার বার মনে না করিয়ে দিয়ে সেখান থেকে কিভাবে বের হয়ে আসা যায় তা শিখানো। সন্তানের রোল মডেল হয়ে উঠুন যাতে সে আপনাকে বিশ্বাস করে।

এর বাইরে আপনি যা খেয়াল করবেন, আপনার সন্তান কাদের সাথে মিশে, তাদের বন্ধু-বান্ধব চিনে রাখুন। তার মনের খবর রাখুন যাতে সে অনিরাপওাবোধ না থাকে।

কীভাবে বুঝবেন সন্তান মাদকাসক্ত কিনা

১. সে যদি আগ্রাসী আচরণ করে।

২. চুপচাপ থাকে বা নিজেকে সবসময় গুটিয়ে রাখে।

৩. খাওয়া ও ঘুমের তালিকা পরিবর্তন।

৪. শারীরিক গঠন হঠাৎ পরিবর্তন।

৫. মেজাজ এর তারতম্য ঘটে।

৬. হঠাৎ কোন কিছুর নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেলে অদ্ভুত আচরণ করা।

এসব দেখলে সর্তকতার সাথে আগে যাচাই করুন তারপর পদক্ষেপ নিবেন। মনে রাখবেন এই ভয়াবহ নেশার হাত থেকে তখনই আপনার সন্তান বেড়িয়ে আসবে যখন আপনি তার  সামনে বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়ে দিবেন। নিশ্চিত করুন সে যাতে আপনাকে ভরসা করে এবং আপনি তাকে সুন্দর ও স্বাস্থ্যকর জীবন উপহার দিবেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও সংবাদ

বিশ্বে করোনা ভাইরাস

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
১,৫৭৬,৫৬৬
সুস্থ
১,৫৪১,৩৪৮
মৃত্যু
২৭,৯৮৩
সূত্র: আইইডিসিআর

বিশ্বে

আক্রান্ত
২৬৩,১৩০,৯১৫
সুস্থ
মৃত্যু
৫,২২০,৯৩৪

Categories